অস্ট্রেলিয়াকে বাঁচাতে অবসর ভাঙবেন ক্লার্ক!

• পরিকল্পনা করে বল টেম্পারিংয়ের কথা স্বীকার করেছেন স্টিভ স্মিথ
• এমন ঘটনায় কেঁপে উঠেছে পুরো অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট
• ২০১৫ সালে অবসরে যাওয়া ক্লার্ক ফিরবেন কি না, এমন প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে
• ২০১৬ সালের পর থেকে শৌখিন ক্রিকেটেও দেখা যায়নি ক্লার্ককে

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন আড়াই বছর আগে। এর মাঝে খুব একটা খেলতে দেখা যায়নি। রাজ্যদল কিংবা ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে ফেরার প্রস্তাব দিয়েও রাজি করানো যায়নি মাইকেল ক্লার্ককে। সেই ব্যক্তি কিনা ফিরতে চাইছেন টেস্টে। শুধু ফেরাই নয়, দলের নেতৃত্বভার নেওয়ার কথাও ভাবছেন ক্লার্ক। কারণ, বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারির পর অস্ট্রেলিয়ার ভাবমূর্তি আবারও ফেরাতে হবে তো!

এমন ঘটনাকে প্রথমে দুঃস্বপ্ন ভেবেছিলেন ক্লার্ক। ক্যামেরন ব্যানক্রফটের সিরিশ কাগজ লুকানোর দৃশ্য দেখে টুইট করেছিলেন, ‘এসব কিসের মাঝে ঘুম ভাঙল আমার! দয়া করে কেউ বলুক, আমি দুঃস্বপ্ন দেখছি।’ তৃতীয় টেস্টে পিছিয়ে পড়া দলকে সমতায় আনতে অস্ট্রেলিয়া থিংক ট্যাংকের এমন প্রতারণার চেষ্টায় রীতিমতো ক্ষুব্ধ ক্লার্ক। এভাবে প্রতারণা করে ম্যাচ জেতার চিন্তা মাথায় আনার জন্য দলের সবাইকে সরাসরি ‘গর্দভ’ বলেছেন ক্লার্ক।

এ ঘটনায় এর মধ্যেই অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন স্টিভ স্মিথ। সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকেও সরে দাঁড়াতে হয়েছে। স্মিথের তথাকথিত ‘লিডারশিপ গ্রুপ’ যদি প্রতারণার সিদ্ধান্ত নেয়, তবে দলের সিনিয়র কারওরই আর অধিনায়ক হওয়ার যোগ্যতা থাকবে না। এ কারণেই চ্যানেল নাইনের স্পোর্টস সানডেতে ক্লার্ককে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, এমন বিপদে ডাক পেলে আসবেন কি না, দলের নেতৃত্ব বুঝে নেবেন কি না।

উত্তরে যা বলেছেন, তাতে অস্ট্রেলীয়দের জন্য আশা জাগতেই পারে। আক্রমণাত্মক অধিনায়কত্বের জন্য বিখ্যাত ক্লার্ক বলেছেন, ‘যদি সঠিক ব্যক্তি (বোর্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত) জিজ্ঞেস করে, আমি এ নিয়ে অবশ্যই ভাবব।’

এটা স্রেফ কথার কথা নাকি আবেগের বশে বলে ফেলা, তা দ্রুতই বোঝা যাবে। তবে এই মুহূর্তে ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল দলটিকে চরম ভাবমূর্তি-সংকট থেকে বাঁচাতে যে নেতাকে দরকার, সেটা মাইকেল ক্লার্কই হতে পারেন।

     More News Of This Category